ফেসবুক মার্কেটিং কি ? Best in 2022

ফেসবুক মার্কেটিং কি ? এবং কিভাবে করা হয় ।

ফেসবুক মার্কেটিং কি ? এবং কিভাবে করা হয় । ফেসবুক বর্তমানে অনেক বড় একটি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটপ্লেস যে খানে সকল শ্রেণীর লোকজনকে পাওয়া যায় এবং বর্তমানে সোশল মেডিয়া মার্কেটিং করার জন্য সবচেয়ে উন্নত মানের এবং সবচেয়ে পারফেক্ট একটি জায়গা হল ফেসবুক

তাই যে সকল লোকজন তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর জন্য নির্বাচন করে তাদের লিস্ট এর মধ্যে সর্ব প্রথমে তাকে ফেইসবুক । বর্তমানে ফেসবুকের মধ্যে 2 ।89 বিলিয়ন । তাই আপনি যেকোনো ধরনের প্রোডাক্ট ও সার্ভিস নিয়ে কাজ করেন না কেন এখানে সকল শ্রেণীর লোকদের পাবেন আপনি । এবং অনেক কম খরচের মধ্যে আপনার সার্ভিস বা পণ্যগুলো আপনার কাঙ্খিত কাস্টমারের কাছে পৌঁছে দিতে পারবেন

ফেসবুক মার্কেটিং কি হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর একটি মাত্র অংশ । এবং সোশ্যাল মিডিয়া এবং ফেসবুক মার্কেটিং এটি হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর অন্তর্ভুক্ত একটি অংশ । তাই এই কাজগুলোর সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বা ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ যে সকল লোক করে থাকে সে সকল লোকজন এই ফেসবুক মার্কেটিং নিয়ে কাজ করে । ফেসবুক মার্কেটিং করার জন্য অবশ্যই আপনাকে কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হবে । যাতে করে আপনি সঠিকভাবে ফেসবুক মার্কেটিং এর মধ্যে সফল হতে পারেন । এবং আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে অনেক দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন । অনেক লোকের সামনে আপনি আপনার পণ্য বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সার্ভিস গুলো তুলে ধরতে পারেন ।

ফেসবুক মার্কেটিং কেন করা হয় ? :-

বর্তমানে যে সকল ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান গুলো সার্ভিস বা পণ্য বিক্রি করে থাকে সে সকল ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো প্রতিনিয়ত অনলাইনের মধ্যে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগু লোকে প্রসার করতে চাচ্ছে । এবং তারা তাদের প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্র্যান্ডিং হিসেবে করে নিচ্ছে । তাদের প্রয়োজন প্রচুর পরিমাণে কাস্টমার । সেজন্য ফেসবুকে তারা বেছে নিতে সে । কারণ ফেসবুকের মধ্যে প্রতি নিয়ত অনেক পরিমাণে ট্রাফিক থাকে । ফেসবুক এমন একটি সোশ্যাল মিডিয়া যা বর্তমানে এক নম্বরে রয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া সাইট গুলোর মধ্যে ।

তাই ফেসবুকের মধ্যে আপনি যদি চান আপনার পণ্যগুলো খুব সহজেই প্রচার করতে পারেন এবং অনেক পরিমাণে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ট্রাফিক নিয়ে আসতে চান । আপনার যে পেজটি থাকবে সেই পেজটিকে বা আপনার যে প্রোফাইলটি থাকবে সেটিকে আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে ।
যাতে করে এমন বুঝা যায় যে আপনি যে প্রোফাইলটি ব্যবহার করেছেন সেটি বিশ্বস্ত একটি প্রোফাইল ।
আমরা প্রোফাইলে বিশ্বস্থতা নিয়ে নিচে আলোচনা করব ।

ফেসবুক মার্কেটিং করা হয় মূলত বর্তমানে ফেসবুকের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে ট্রাফিক রয়েছে । সকল ধরনের অডিয়েন্স রয়েছে ফেসবুকের মধ্যে প্রতিনিয়ত ফেসবুক একটি জনপ্রিয় সাইট হয়ে উঠেছে এবং অলরেডি সোশ্যাল মিডিয়া গুলোর মধ্যে এক নম্বর সাইট হিসেবে জনপ্রিয়তা পেয়েছে । তাই ফেসবুকের মধ্যে আপনার বিজনেস কে প্রমোট করা আপনার অবশ্যই জ্ঞানী মানের কাজ হবে । আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এ ধরনের টার্গেটেড মানুষকে নিয়ে করবেন বাজে ধরনের টার্গেট অডিয়েন্স দের নিয়ে করবেন সে ধরনের অডিয়েন্স অবশ্যই ফেসবুকের মধ্যে থাকবে । যেহেতু অলরেডি ফেসবুকের মধ্যে সেই ধরনের অডিয়েন্স রয়েছে সেহেতু আপনি কিন্তু চাইলেই খুব দ্রুত আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন ।

এই বিষয়টা যেহেতু আপনি পড়েছেন তাহলে অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ হলো ফেসবুক । যেহেতু আপনি যে ধরনের ব্যবসায়ী করেন না কেন সে ধরনের কাস্টমার কিন্তু ফেসবুকের মধ্যে অনেক পরিমানে রয়েছে তাই আপনার অনেক সহজ হবে আপনার কাস্টমারদের কাছে আপনার পণ্য বা সার্ভিস পৌঁছে দেওয়া । এই কারণেই মূলত ফেসবুক অন্যতম একটি কারণ হয়ে উঠেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে প্রসার করার ক্ষেত্রে । কিন্তু হ্যাঁ অবশ্যই আপনাকে ফেসবুকের কিছু টিপস্ এন্ড ট্রিকস্ অবলম্বন করতে হবে আপনার ব্যবসাকে প্রসার করার জন্যে । তাই অবশ্যই পুরো আর্টিকেলটি পড়বেন তাহলে আপনারা বুঝতে পারবেন কি কি কাজ করলে আপনি অনেক দ্রুত ফেসবুক থেকে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে অনেক বেশি এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন ।

ফেসবুক মার্কেটিং কি ? :-

ফেসবুক মার্কেটিং হল এমন একটি মার্কেটিং যার মাধ্যমে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে খুব সহজেই প্রসার করতে পারেন এবং অনেক দ্রুত আপনার অডিয়েন্স দের কাছে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যে বিষয় নিয়ে রয়েছে অর্থাৎ আপনার যে সার্ভিস বা পণ্য রয়েছে সেগুলো খুব সহজেই পৌঁছে দিতে পারেন ।

ফেসবুক মার্কেটিং হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি অধ্যায় মাত্র এবং ডিজিটাল মার্কেটিং মধ্যে কিন্তু অনেক বিষয়বস্তু রয়েছেন । আপনাদেরকে সহজে ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে বলি । মনে করেন আপনার ফোনে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে সে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে আপনি অনেক দূর এগিয়ে নেওয়ার চিন্তা ধারা রয়েছে ।

ফেসবুক হচ্ছে এমন একটি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম যেখানে আপনি খুব সহজে আপনার টার্গেটেড মানুষদেরকে খুঁজে পাবেন । এই কারণেই মূলত বিভিন্ন কোম্পানিগুলো ফেসবুকের মাধ্যমে নিজেদের কোম্পানিগুলোকে প্রচার করতেছে । ফেসবুকের মধ্যে গিয়ে সেই কোম্পানির কোন একটি প্রোফাইল তৈরি করে প্রতিনিয়তই প্রচার করে যাচ্ছে এবং তাদের সার্ভিস এবং পণ্যগুলো বিক্রি করে যাচ্ছে এ জিনিসটা হল ফেসবুক মার্কেটিং ।

ফেসবুক মার্কেটিং কত প্রকার ও কি কি :-

ফেসবুক মার্কেটিং প্রধানত 2 প্রকার হয়ে থাকে এবং সেগুলো হলো :-

1 ।টাকা দিয়ে ফেসবুকের মধ্যে বুস্ট করে মার্কেটিং করা
2 ।সম্পূর্ণ ফ্রি-তে অর্গানিক ভাবে মার্কেটিং করা ।

টাকা দিয়ে মার্কেটিং করা :-

ফেসবুকের মধ্যে মার্কেটিং করার জন্য ফেসবুক নিজেই টাকা নিয়ে থাকে । আপনি যদি চান আপনার কোম্পানিকে অনেক দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাবেন এবং প্রফেশনাল ভাবে কাজ করে যাবেন তাহলে কিন্তু আপনি চাইলে ফেসবুকে কিছু অর্থের বিনিময় আপনার পোস্ট এর মধ্যে থাকা পণ্য বা সার্ভিস টি ফেসবুক নিজেই আপনার যে অডিয়েন্স গুলো প্রয়োজন সে ওদের কাছে পৌঁছে দেবে ।

সহজভাবে বলতে গেলে আপনি ফেসবুকে টাকা দিয়ে আপনার যে পণ্য বা সার্ভিস রয়েছে তা প্রমোট করবেন । এই কাজটি করে থাকে যারা প্রফেশনালভাবে ফেসবুকের মধ্যে কাজ করে যায় ।এটি থেকে অনেক সুফল পাওয়া যায় । আপনি যদি 1000 টাকার একটি বুস্ট করে থাকেন ফেসবুকের মধ্যে তাহলে দেখা যাবে আপনি কিন্তু অনেক কাস্টমার পেয়ে যাবেন এবং আপনার পেজ অনেক কাস্টমারদের নজর কেড়ে নিবে ।

আপনি যখন ফেসবুক কে টাকা দিয়ে আপনার পোস্টটি কে বুস্ট করবেন তখন কিন্তু ফেসবুক নিজেই আপনার কৃত বুষ্ট কে অনেক লোকের কাছে পৌঁছে দেবে ফেসবুকের কিছু অ্যালগরিদম এভাবে করা হয়েছে এর থেকেই ফেসবুক মূলত অর্থ উপার্জন করে থাকে ।

এটা করার জন্য অবশ্যই আপনার একটি ফেইসবুক পেইজ এর প্রয়োজন হবে এবং সেখানে যদি আপনি পোস্ট করেন তাহলে দেখা যাবে সেই পোষ্টটি করার পরে আপনার পোষ্টের পাশে একটি অপশন দেখাবে বুষ্ট অপশন ।

আপনি চাইলে আপনার ইচ্ছে মত সেই অপশনকে কাস্টমাইজেশন করতে পারেন আপনার যে ধরনের কাস্টমারের প্রয়োজন সেই ধরনের কাস্টমারদের জন্য কাস্টমাইজেশন করবেন আপনি । সঠিকভাবে কাস্টমাইজেশনের পরে আপনি কত টাকার এবং কতদিনের জন্য বুস্ট করতে চাচ্ছেন সেটা জিজ্ঞেস করবে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ । তখন আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণের টাকা দিয়ে বা আপনার বাজেট অনুযায়ী টাকা দিয়ে ফেসবুকের মধ্যে বুস্ট করতে পারেন খুব সহজেই । আপনি যখন বুস্ট করতে যাবেন তখন কিন্তু আপনাকে ফেসবুক দেখাবে কত টাকায় কতগুলো ট্রাফিকের কাছে আপনার পোষ্ট পৌঁছে দেবে সম্ভাব্য একটি আইডিয়া আপনাকে দিয়ে দেবে ।

অর্গানিক ফেসবুক মার্কেটিং বিনা টাকায় ফেসবুক মার্কেটিং :-

বর্তমানে শুধুমাত্র 5 শতাংশ লোক এই ফেসবুকে টাকা দিয়ে তাদের থেকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে প্রচার করে যাচ্ছে । এবং 95 শতাংশ মানুষই কিন্তু তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা তাদের যে গ্রুপ বা পেজ গুলো থাকে তাদেরকে প্রচার করে থাকে সম্পূর্ণ বিনা টাকায় । মূলত টাকা দিয়ে মার্কেটিং তারাই করে যারা প্রফেশনাল ভাবে কাজ করে ।

তাই অবশ্যই মাথায় রাখবেন আপনি যদি প্রফেশনাল ভাবে কাজ করতে চান তাহলে কিন্তু আপনাকে কিছু অর্থ বিনিয়োগ করতেই হবে । তাতে করে আপনি কিন্তু একটি ভালো সুফল বয়ে আনতে পারবেন আপনার ব্যবসার জন্য ।

বিনা টাকায় আপনি যখন ফেসবুক মার্কেটিং করতে যাবেন তখন আপনার কিন্তু বিভিন্ন জায়গাতে আপনার পোস্টগুলো শেয়ার করতে হবে । আপনার একটি পেজ থাকতে হবে আপনার একটি গ্রুপ থাকতে হবে । এবং সেগুলোর মধ্যে যথাযথ নিয়ম অনুযায়ী প্রতিনিয়ত আপনাকে পোস্ট করতে হবে আপনার পণ্য বা প্রোডাক্ট রিলেটেড । এতে করে কিন্তু আপনি খুব সহজেই ফেসবুকের মধ্যে সম্পূর্ণ ফ্রিতে মার্কেটিং করে যেতে পারেন ।

ফেসবুক মার্কেটিং এর জন্য কি কি বিষয় প্রয়োজন :-

আপনি যখন ফেসবুক মার্কেটিং এর জন্য আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে নির্বাচন করে নিবেন এবং সিদ্ধান্ত করে নিবেন আপনি ফেসবুকের মধ্যে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে প্রচার করবেন তাহলে কিন্তু সর্বপ্রথম আপনাকে একটি পেইজ ও একটি গ্রুপ তৈরি করে নিতে হবে ।

গ্রুপ এবং পেজের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে কিন্তু আপনি যখন গ্রুপ ও পেজ তৈরী করে নিবেন তখন কিন্তু আপনার কাছে ফেসবুকের একটি প্রোফাইল চলে আসবে এবং সে প্রোফাইল গুলো সঠিকভাবে কাস্টমাইজেশন করতে হবে । যাতে করে লোকজন আপনার গ্রুপের যে সকল পোষ্ট গুলো রয়েছে বা যে প্রোফাইলটি রয়েছে সেটা দেখে বিশ্বাস করতে পারে ।

কিভাবে একটি পেজ তৈরি করব :-

আপনি যখন আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি পেজ তৈরি করবেন তখন আপনাকে অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে এই পেজটি যাতে প্রফেশনালভাবে দেখায় সেই হিসেবে আপনি আপনার পেজটিকে ডিজাইন করে নিবেন । পেইজ এর মধ্যে আপনি যেই লোগোটি ব্যবহার করবেন সেটি প্রফেশনাল লোগো দেখাতে হবে । যে ব্যানারটি ব্যবহার করবেন আপনি আপনার ফেসবুক পেজের জন্য সেটি অবশ্যই আপনি এমন একটি ব্যানার তৈরি করবেন যেটা আকর্ষণীয় ব্যানার এবং আপনার পেইজ রিলেটেড ব্যানার তৈরি করতে হবে ।আপনার পেজের এসকল কাজ যখন সম্পন্ন হয়ে যাবে তখন আপনার কাজ হবে লাইক এবং ফলোয়ার বাড়ানোর ।

আপনার পেজের মধ্যে যত বেশি লাইক এবং ফলো আর হবে ততই আপনার পেজটি পপুলার দেখাবে । এবং অনেক বেশি প্রফেশনাল দেখাবে তাই অবশ্যই চেষ্টা করবেন পর্যাপ্ত পরিমাণে লাইক এবং ফলো ওয়ারফেজ এর মধ্যে রাখার । এতে করে আপনার কাস্টমারদের একটি বিশ্বস্ততার জাগবে যে পেজটি অবশ্যই ভালো কাজের জন্য এসেছে বা অনেকদিন যাবত থাকবে ।

আপনার পেজ থেকে যখন কোনো একজন ব্যক্তি কোন একটি পণ্য ক্রয় করবে বা কোন সার্ভিস সেবা গ্রহণ করবে তখন তাকে বলবেন অবশ্যই যাতে করে একটি রিভিউ দিয়ে যায় । এতে করে কিন্তু আপনার পেজের জন্য অনেক বেশি গুড ইফেক্ট বয়ে আনবে । কারণ যদি কোন একজন ব্যক্তি আপনার পেজের মন্তব্যে জানতে চায় তাহলে কিন্তু খুব সহজেই আপনি প্রমাণ হিসেবে সে রিভিউগুলো দেখতে বলতে পারেন ।

ফেসবুকের মধ্যে ব্যবসা করার জন্য যদি আপনি আসেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে খুব সততার সাথে ব্যবসা করে যেতে হবে এমন ভাবে ব্যবসা করবেন যাতে কোনো ব্যক্তিকে আপনি কোনভাবেই প্রতারিত না করেন । এতে করে আপনার পেজের রেপুটেশন অনেক বেশি বেড়ে যাবে । এবং অনেক বেশি বিশ্বস্থতা যোগাতে পারবেন ।

কিভাবে একটি গ্রুপ তৈরি কর :-

আপনি যখন একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করবেন তার সাথে সাথে একটি গ্রুপ তৈরি করে নেবেন পেজ হচ্ছে আপনি যেহেতু এডমিন থাকবেন সেতু আপনি ছাড়া অন্য কেউ সেই পেজের মধ্যে পোস্ট করতে পারবে না । শুধুমাত্র আপনার কমেন্টের মধ্যে তাদের মূল্যবান বক্তব্য প্রকাশ করবে ।

কিন্তু পেজের মধ্যে ঠিক এমনটা হয় না । সেই পেজের মধ্যে কিন্তু আপনিও কমেন্ট করতে পারবেন এবং পোস্ট করতে পারবেন । এবং বিপরীতে আপনি যখন মেম্বার যোগ করবেন সেই গ্রুপের মধ্যে তখন সেই মেম্বাররাও তাদের মূল্যবান বক্তব্য গুলো প্রকাশ করতে পারবে পোস্ট আকারে । অর্থাৎ পেজ এর মধ্যে শুধু কিন্তু আপনি একাই পোস্ট করতে পারবেন কিন্তু গ্রুপগুলোর মধ্যে আপনি এবং আপনার যে সকল অডিয়েন্স থাকবে তারা পোস্ট করতে পারবে ।

তাহলে অবশ্যই বুঝা গেল আপনি একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ফেসবুকের মধ্যে তৈরি করতে চাইলে আপনাকে ফেসবুক পেজ ও ফেসবুক গ্রুপ দুটো বিষয়ের প্রয়োজন হবে ।

কিভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান প্রমোশন করব :-

ফেসবুকের মধ্যে 3 ভাবে কিন্তু আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে প্রচার করতে পারেন ।

 

1 ।শুধুমাত্র আর্টিকেল লিখে
2 ।শুধুমাত্র ছবি ইমেজ ব্যবহার করে
3 ।ভিডিও তৈরি করে ।

ফেসবুকের মধ্যে যখন আপনি আর্টিকেল লিখবেন তখন আপনাকে অবশ্যই একটু মনোযোগ দিয়ে আর্টিকেলগুলো লিখতে হবে যাতে করে একজন ভিউয়ার্স আপনার আর্টিকেল দেখে সম্পন্ন পরে ।এবং সেখানে সম্পূর্ণ ইনফর্মেশন গুলো দেবেন আপনার প্রোডাক্টের । যখন আপনি ফেসবুকের মধ্যে কোনটি ছবি আপলোড করবেন তখন কিন্তু আপনাকে সে ছবিটির ক্যাপশন এবং টাইটেল গুলো সঠিক দিতে হবে । এবং ছবির ডেসক্রিপশন কিছু হলেও লিখে দিবেন ।

ভিডিও তৈরি ;-

ফেসবুকের জন্য যখন আপনি ভিডিও তৈরি করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে ভিডিও ট্যাগ টাইটেল থাম্বনেল এ সকল বিষয়ের উপরে নজরদারি রাখতে হবে ।আপনি যখন একটি ভিডিও তৈরি করবেন তখন কিন্তু সেই ভিডিওটি বিভিন্ন লোকজনের নিউজ ফিডে যাবে এবং আপনার যদি সঠিক টাইটেল এবং সঠিক থাম্বনেল ব্যবহার করেন আপনারা ভিডিওর মধ্যে তাহলে কিন্তু অনেক বেশি ভিউয়ার্স পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে ।

এবং আপনাকে সেই ভিডিওটি আপনার গ্রুপের মধ্যে শেয়ার করতে হবে এবং সকল গ্রুপের মধ্যে চেষ্টা করবেন শেয়ার করার । ফেইসবুক এর অ্যালগরিদম এমন একটি বিষয়ের উপরে কাজ করে ভিডিওগুলো কে ওকে ভাইরাল করে তা হল । প্রথম এক ঘণ্টার মধ্যে যত বেশি ভিজিটর আসে ততবেশি কিন্তু সে লোকজনের নিউজফিডে পৌঁছে দেয় আপনার পোস্টকৃত ভিডিওটি ।

তাই অবশ্যই চেষ্টা করবেন যখন আপনি একটি ভিডিও পাবলিস্ট করবেন আপনার ফেসবুকের পেজের মধ্যে তবে অবশ্যই ভিডিওটি যত পারবেন প্রথম এক ঘণ্টার মধ্যে শেয়ার করতে । তাহলে কিন্তু আপনার ভিডিওর মধ্যে অনেক বেশি ভিউয়ার্স চলে আসার সম্ভাবনা থাকবে এবং আপনার পণ্য টি অনেক বেশি বিক্রি হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে ।

আমাদের শেষ কথা ;-

আমরা এত টাইম যাবত এই ব্লগের মধ্যে আপনাদেরকে ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে বুঝানোর চেষ্টা করেছি এবং আপনারা যদি সঠিকভাবে ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে বুঝতে চান তাহলে কিন্তু অবশ্যই আপনাদেরকে এই ব্লগটি সম্পন্ন পড়তে হবে । আপনারা যদি সম্পূর্ণ ব্লগ টি পড়েন তাহলে অবশ্যই আপনারা ভালো একটি ধারণা পেয়ে যাবেন ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে । আজকের জন্য আমরা এখানেই বিদায় নিলাম অন্য একদিন অন্য কোন ব্লগ নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হব ইনশাআল্লাহ । সবাই ভাল থাকবেন ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.